ঢাকাশনিবার , ২৭ নভেম্বর ২০২১
  1. গল্প
  2. চারপাঁশে
  3. ভালবাসার খুনসুটি
  4. ভালবাসার গল্প
  5. রাজ রানী

ভালোবাসার রাজরানী আমার পর্ব-৩

গল্পিবাজ ডেস্ক
নভেম্বর ২৭, ২০২১ ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

রাজরানী আমার গল্পের পূর্ববর্তী পর্ব গুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন এবং ইনজয় করুন।

আমি হতাশা ভোগ করছি এরপর আমার মনে হচ্ছে আচ্ছা এত সুন্দরী মেয়ে নিশ্চয়ই তোর বয়ফ্রেন্ড আছে তাহলে কি আমার ভাললাগা বিফল যাবে আমার ভালোলাগা সফল হবে না এগুলো ভেবে ভেবে মন খারাপ হচ্ছে ক্লাসে প্রফেসর সাহেব পড়াচ্ছেন কিছু আমার মাথায় ঢুকছেনা কিভাবে ঢুকবে এই গুলো ভেবে ভেবে আমার আমার যেন কেমন হয়ে যাচ্ছে কিছুতেই যেন মাথায় কিছু ঢুকছে বুঝতে পারছি না কি করা যেতে পারে।

আমার মনে হচ্ছে এই মেয়ে নিজেকেই এখনো ছোট দাবী করে তাহলে কিভাবে রিলেশন করতে পারে সবকিছু মিলিয়ে আমার মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে কিছুতেই যেন কিছু বুঝতে পারছিনা কি করবো কিছু মাথায় ঢুকছেনা। এদিকে স্যারের ক্লাস শেষ এখন ছুটি হওয়ার পালা সবাইকে ছুটি দিয়ে দিল যে যার গন্তব্যে চলে গেল আমিও গন্তব্যে যাচ্ছি আর পেছনের দিকে তাকাচ্ছি আমাকে ডাক দেয় না কিন্তু না কেউ ডাক দেয় নি।

বাসায় চলে আসলাম কিন্তু কোনোভাবেই খাওয়া-দাওয়া ঘুম ঠিকমতো হচ্ছে না সব যেন গুলিয়ে যাচ্ছে কিছুই যেন ঠিক নেই সব যেন অদ্ভুত লাগছে কি করবো কিছু বুঝতে পারছিনা। পড়তে বসলে করার মধ্যে মন বসছে না সামনে পরীক্ষা বুঝতে পারছি না কি শুরু হলো আমার সাথে, পরেরদিন কখন ক্লাসে যাবো এনয়ে যেন আমার সময় কাটছে না ইচ্ছে হচ্ছে আবার গিয়ে ক্লাসে রাজরানী আমারবসে থাকে শুধুমাত্র ঈশ্বরকে দেখার জন্য। 

আরো পড়ুনঃ  ভালোবাসার রাজরানী আমার পর্ব-৯

ভালোবাসার রাজরানী আমার পর্ব-২

কোনমতে রাত পার করলাম সকালে নাস্তা করে ভার্সিটি তে চলে আসলাম ভার্সিটিতে এসে বসে আছি কখন আসবে আবার একটু কথা বলা যেতে পারে। ক্লাসের বারান্দায় বসে আছি একটা চেয়ার এর মধ্যে দূর থেকে লক্ষ্য করলাম সেটা আসছে রিক্সা করে আমি অদ্ভুত ভাবে তাকিয়ে ছিলাম ভাটার ধরন দেখে যখন ভার্সিটিতে ঢুকলো তখন বুঝতে পারলাম হয়তো ভাইয়েরা মধ্যবিত্ত ফ্যামিলির হবে কিন্তু এত সুন্দর মেয়ে পরীর মতো মেয়ে মধ্যবিত্ত ঘরের বিষয়টা অদ্ভুত। রাজরানী আমার

ইচ্ছে হয়েছিল ইশরাতকে ডাক দিব কিন্তু এই সিচুয়েশনে এই পাবলিক প্লেসে যদি সিরাজকে ডাক দেই হয়তো অন্য অন্য যারা রয়েছে তারা মাইন্ড করবে তারা বিষয়টি খারাপ নজরে দেখবে আর কোন বিষয়টি লাইব্রেরীতে কিংবা অফিসের নোটিশ যেতে পারে যার জন্য ঢাকনা দিয়ে জিব্বা কামড় দিয়ে বসে আছি এখানে। লক্ষ্য করলাম ইসরাত আমার দিকে তাকিয়েছে কিন্তু হাসি দিয়েছে কিনা সেটা বুঝতে পারিনি কারণ ওর মুখ ঢাকা। রাজরানী আমার

আরো পড়ুনঃ  ভালোবাসার রাজরানী আমার পর্ব-৪

ইসরাত বারান্দা থেকে ওর ক্লাসে যাবে এমন সময় আমাকে বসা দেখে জিজ্ঞেস করল কী অবস্থা ভাইয়া কেমন আছেন কারো জন্য অপেক্ষা করছেন নাকি? আমি বাসা থেকে উঠে দাড়িয়ে বললাম হ্যাঁ অপেক্ষা করছি কারো জন্য হাসি দিয়েছে আমি শুনতে পেলাম এবং বলল ও আচ্ছা তাহলে আপনি জিনিস মনে করছেন না তো কালকে বললেন না আমি বললাম বলার সময় কখন পেলাম। রাজরানী আমার

ইসরাত বলল ঠিক আছে ভাইয়া তাহলে থাকেন ক্লাসে যাচ্ছি আজকে এমনিতেও ভার্সিটিতে আসতে লেট হয়ে গেছে আমি বললাম ঠিক আছে আর কেন্টিনে আসার জন্য আমন্ত্রণ করলাম তোমায় তুমি ক্যান্টিনে এস। সে বলল মনে হচ্ছে আজকে ছুটি দেবেন আমি বললাম হ্যা আজকে তোমাকে ট্রিট দিবো তুমি এসো আজকে তোমাকে আমি খাওয়াবো বলল ও আচ্ছা তাহলে আজকে জীবনের প্রথম কেউ আমাকে ট্রীট দিল অবশ্যই আসব ঠিক আছে ভাইয়া তাহলে থাকেন। রাজরানী আমার

কিন্তু ও যতবার ভাইয়া ডাকছে তত বাজে আমার মেজাজ কেন গরম হয়ে যাচ্ছে কিন্তু ওরে বুঝাতে পারছি না তার পরেও ওর ভাই এটা কি আমি সারা দিচ্ছি কিছু করার নেই কি করবো যদি জানা থাকে তাহলে কি ডাকবে এই পরিচয় অন্যকিছু ডাকার মত সিস্টেম নেই আমি কিছু বলছি না বলছি ঠিক আছে তো ভাইয়া ডাকুক পরে কি ডাকে সেটা দেখা যাবে। রত অবস্থায় ইসরাত ওর ক্লাস রুমে চলে গেল এবং আমি আমার কাছে চলে গেলাম অবস্থা এখন একটু শান্ত ওর সাথে কথা বলতে পেরে। আমি শান্ত হয়ে ক্লাসের বাকি পর্বগুলো শেষ করলাম এখন টিফিন টাইমে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছি বাসা থেকে অত বেশি টাকা ওয়ালা হয়নি আর আজকে তাড়াহুড়ো করে বাসা থেকে টিফিন আনা হয়নি যেহেতু বাসা থেকে টিফিন আনা হয়নি তাই থেকে কিনে খেতে হবে। রাজরানী আমার

আরো পড়ুনঃ  ভালোবাসার রাজরানী আমার পর্ব-৮

এই গল্পের বাকি পর্বগুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন এবং অবশ্যই কমেন্ট করে আপনার মতামত জানান গল্পটি আপনার কাছে কেমন লাগছে কেন না আপনার কেমন লাগে তার উপর ডিপেন্ড করে বাকি গল্পগুলো তৈরি হবে। রাজরানী আমার