ঢাকাশুক্রবার , ২৬ নভেম্বর ২০২১
  1. গল্প
  2. চারপাঁশে
  3. ভালবাসার খুনসুটি
  4. ভালবাসার গল্প
  5. রাজ রানী

ভালবাসার তাজমহল পর্ব-১

গল্পিবাজ ডেস্ক
নভেম্বর ২৬, ২০২১ ৮:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সত্যি কথা বলতে আমাদের ভালোবাসা ছিল অন্যতম একটি ভালবাসা’ এটার সাথে কারো তুলনা করতে পারছি না। আমাদের ভালোবাসার পুরো গল্পটা শুনলে আপনিও হয়তো অবাক হয়ে যাবেন এটা শুধু আমাদের নিম্নতম অন্যরকম একটা ভালোবাসার গল্প। আমাদের ভালবাসাটা আজও টিকে আছে এটা অন্য রকম একটা অনুভূতি মাঝে বাস করে এই ভালোবাসার গল্প টি আর মানুষের মাঝে আজও অবিচল রাখতে চাই।

আমি যাকে ভালোবাসি তার নাম হচ্ছে ইয়ামিন। ওর বয়স 17 বছর ওর বাড়ি রাজশাহীতে মেন শহরে অবশ্য আমার বাড়ি রাজশাহী শহরে আমরা দুজন দুজনকে গত দুই বছর ধরে খুব ভালো করে চিনি এবং আমাদের রিলেশন টা খুব বেশি ভালো। আমাদের ভালোবাসার মধ্যে কখনো কোন ধরনের অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটেনি কখনো কেউ অন্যকে ছেড়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি রাখেনি।

আমাদের দুজনার একটাই স্লোগান সেটা হচ্ছে বাঁচলে একসাথে বাঁচবো এবং মরলে একসাথে মরবো স্লোগানকে সামনে রেখে আমাদের ভালবসাকে কান্ট্রি করে যাচ্ছি আমরা দুজনে ভালোবাসার শেষ পর্যন্ত দেখতে যাওয়া অনেক ভালোবাসা মধ্যে নিমিষেই হারিয়ে যায় তারা সফল হতে পারেনা তাদের ভালোবাসা কখনো সত্যি হয় না সেই তুলনায় আমরা যাচ্ছি আমাদের ভালবাসাটা কি সত্যিই করতে আমাদের ভালোবাসা টাকে ইতিহাস করে রাখতে এই ইতিহাস করে রাখতে চাও আমাদের ভালোবাসা ঠিক যেন থাকে সে বিষয়ে আমরা অবগত।

আরো পড়ুনঃ  ভালবাসার তাজমহল পর্ব-৫

আমি ইয়ামিন খুব বেশি ভালোবাসি এবং আমি আমাকেও খুব বেশি ভালোবাসে ও হ্যাঁ আমার নাম বলা হয়নি, আমার সম্পূর্ণ নাম হচ্ছে আরিফ খান জাহিদ। আমরা ফ্যামিলি সহ রাজশাহীতে মেন শহরের মধ্যে বসবাস করে। রাজশাহীতে প্রায় 14 বছর ধরে রয়েছে, ওদের গ্রামের বাড়ি সাতক্ষীরা রাজশাহীতে থাকে কারণ এখানে চাকরি করে তাকে এখানে বদলি করে দেয়া হয়েছে তাই। আমাকে ভালোবাসার শুরুটা একটু অদ্ভুত হলেও এখন ভালোবাসাটা চলছে অসাধারনভাবে এটা আমার মনে হচ্ছে না এই ভালোবাসা কখনো ফুরিয়ে যাবে এটা অফুরন্ত ভালোবাসা নদীর পানি যেমন কখনো ফুরিয়ে যায় না তেমনি আমাদের ভালবাসাটা কখনো ফুরাবে বলে মনে হয় না।

ভালবাসার তাজমহল পর্ব-২

আমাদের এই অফুরন্ত ভালোবাসার মধ্যে কখনো কোন মিথ্যার আশ্রয় কিংবা সন্দেহভাজন কোনো ফাটল ধরেনি তবে ইদানিং আমাদের মধ্যে একটা ভুল-বোঝাবুঝি চলছে যেটা নিয়ে একটু সমস্যার মধ্যে রয়েছে তবে এটাও আশা করি আমার গার্লফ্রেন্ড বুঝতে পারবে এবং আমি ওকে বুঝাতে সক্ষম হব।

আমি ওকে এত পরিমাণে ভালোবাসি যেখানে আমি ওর জন্য সহজেই জীবন দিতে পারি এমন একটা সিস্টেম হয়ে গেছে অনুরূপভাবে আমাকেও এত পরিমান ভালোবাসে যেখানে আমার জন্য অনুরূপভাবে ও কোন কথা ছাড়াই জীবন দিতে পারে আমাকে প্রচুর ভালোবাসে আমরা এটা জানি যে যাকে ভালবাসে বেশি তাকে সন্দেহ করে বেশি স্বাভাবিক। ও আমাকে প্রচুর সন্দেহ করে এবং সব সময় আমার মোবাইলে ফেসবুক আইডি এগুলো চেক করে।

আরো পড়ুনঃ  ভালবাসার তাজমহল পর্ব-৬

এতে আমি কখনো ও খুশি নই আর আমি ইয়ামিন ছাড়া অন্য কোন মেয়ের দিকে খারাপ দৃষ্টি কিংবা অন্য কোন দৃষ্টিতে তাকায় নি আজ পর্যন্ত এটা আমার বিশ্বাস এবং এটা আমি শিওর দিয়ে বলতে পারবো ইয়ামিনকে আমি পর্যাপ্ত এবং যথেষ্ট ভালোবাসি। আর প্রত্যেকটা সময় কাটে ওর সাথে চ্যাটিং করে ওর সাথে গল্প করে ওর সাথে কথা বলার মতো থেকে বিশেষ করে আমার ফ্যামিলি জানে আমি ইয়ামিনকে ভালোবাসি এবং মাঝে মাঝে ইয়ামিন আম্মুর সাথে কথা বলে।

বুঝতে পারি আমাদের ভালবাসাটা কোন খারাপ কাজের সাথে জড়িত না এটা অবৈধ কোন ভালোবাসা প্রেমের অবৈধ কোন সম্পর্ক নয় এ ভালোবাসাকে কান্ট্রি ও করে যাওয়া যেতে পারে। ভালোবাসার মধ্যে ফাটল তখনই আসে যখন দুজনের অবিশ্বাস দুজনের বিশ্বাস কাজ করে না দুজনের বিশ্বাস হয়ে যা অন্য রকম একটা অনুভূতি তখন তুমি আমাদের মধ্যে পর্যাপ্ত বিশ্বাস রয়েছে পর্যাপ্ত ভালোবাসার ইচ্ছে শক্তি রয়েছে যার জন্য আমাদের মধ্যে কখনও সমস্যা হবে এমনটা কল্পনা করিনি।

আরো পড়ুনঃ  ভালবাসার তাজমহল পর্ব-৪

একদিন ভার্সিটি থেকে আসার পথে ইয়ামিনের সাথে একটা রেস্টুরেন্টে ঢুকলাম এবং সেখানে দুজনে খাওয়া-দাওয়া করার প্রস্তুতি কিংবা প্রিপারেশন নিলাম অথবা তৈরি হলাম এর মধ্যে আমাদের ক্লাসের একটা মেয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে বলে আজকে আমার সাথে তাকে নিয়ে আসলে অবশ্য এটা মজা করে বলব কিন্তু ইয়ামিন কি বুঝে খুব রাগান্বিত হয়ে ওখান থেকে উঠে গেল এবং ওই মেয়েটি বুঝতে পারো যে আমি অনেক বেশি রাগ করেছে এবং উঠে গেছে।

ইয়ামিন বুঝতে পেরে যে হয়তো এই বেটি আমার পূর্বের কেউ কিছু না আমি অন্য কোনো খারাপ কাজ সাথে জড়িত কিন্তু আল্লাহ এই মেয়েটিকে একমাত্র মজা করার জন্য বলেছে এই মেয়েটিকে সারপ্রাইজ এটি বলবে এর আগে ইয়ামিন উঠে চলে যায় এবং প্রচুর রাগ করে এরপর থেকে ইয়ামিনকে ফোন দিতে লাগে তখন দেখে আমি আর ফোন বন্ধ কোন ভাবেই ওর সাথে আমি যোগাযোগ করতে পারছিনা।

এই গল্পের পরবর্তী পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন।